Header Ads

অভিমানী পৃথিবী

অভিমানী পৃথিবী
এসকেএইচ সৌরভ হালদার

(পৃথিবীটা অনেক সুন্দর কাব্যগ্রন্থ থেকে নেওয়া হয়েছে)

আমি একটি গোলাকার বস্তু যার গর্ভে রয়েছে অগণিত জীবজন্তু পশুপাখি জীব জানোয়ার আরো কত কিছু।যার ভিতরে এমন এক জাতি আছে যারা প্রতিনিয়ত প্রকৃতির সাথে তাল মিলিয়ে সব ক্ষেত্রে আগে পৌঁছাতে চায় ,সেই জাতি হল মানব জাতি ।যার কোন দিক থেকে বর্ণনা করতে গেলে ভালো দিক আসলেও খারাপ দিক থাকবে প্রচুর।আমি সেই বস্তু পৃথিবী আর কোন চাওয়া পাওয়া নেই শুধু এক মধ্যকার সৃষ্টিকর্তার লীলার মাধ্যম দিয়ে জীবন যাপন করছি। কিন্তু সুস্থ জীবন যাপনে মানব জতির উৎপাতে তাদের কর্মকাণ্ডে আজ আমি অভিমানী পৃথিবী। প্রকৃতির সৌন্দর্যে আমি সুন্দরী হলেও আমারও তো অভিমান হয়। কোন এক প্রান্ত থেকে আমি অনুভব করি কোন এক বাস্তব মানব এক মেয়েকে ভালোবাসে সে এক অপরাধী হয়ে আছে সেই মেয়েটির কাছে।
- কিন্তু এ কেমন বিচার ?
মধ্য বয়সী এক নারী তার  সৌন্দর্য  এক কিশোর এর মধ্যে প্রেম জাগালে ক্ষণিকের জন্য ,কিছু ভাবনা ভুল বুঝে সেই নারী আজ অভিমানী। এই দেখে আজ বুঝে আমি পৃথিবী খুব বিরক্ত বোধ করছি।
এ কেমন মান বের ভালোবাসা যেটা বোঝার আগে থেকেই ভুল বুঝে। বুঝি কোন কিছু চাওয়ার আগে তার রূপের গুণের কথা ভেবে সে আজ নিজেকে হয়তো রূপসী ভাবছে।


কি আছে তাহলে? শুধু সুন্দরী হলেই তার গুণের সহিত তুলনা করা মানবের একটি অতি বড় ভুল। সে আর বা ক'জন বোঝে। কোন কারনে এই রূপসী এক নারী ভুল বুঝে তাহলে সে সাহসী এর মত প্রশ্ন না করে ভুল বুঝে কথা বলা বন্ধ করে দেয় অসীম সময়ের জন্য।
তাই বুঝি এসকল কষ্ট দেখে আমিও কান্নার অনুভূতি প্রকাশ করি এক নিঝুম রাতে বৃষ্টির মধ্যে দিয়ে। কখন হয়তো রাগ করে আমি বজ্রপাত করি বিকর্ণ আওয়াজে। কিন্তু আমার এই গর্ভে এত অভিমান এত রাগ এত আর্তনাদ  করো এই মানব জাতি কই কখনো তো আমি রাগ করি না যখন অভিমানী বৃদ্ধি পেতে থাকে তখন হয়তো সেই পাপকে নিঃশেষ করার জন্য আমি বিনাশ করি।
ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর জানা সত্ত্বেও সেই ধূমপান করে।
 কারণ
সে শখে ধূমপান করে
তাও নয়
তাহলে!
তাহলে সে কি  নিজেকে জানে না ?
নাকি কোন কোনো কষ্টকে আড়াল করে রাখতে সে নিজেকে বুঝায় ধূমপান হয়তো তাকে আশ্রয় দেবে সেই কষ্টকে নিভৃতি করতে। তার এই ভুল ধারণা হয়তো তাকে বিভিন্ন ভাবে ক্ষতি করছে। কিন্তু সে বোঝেনা অবুঝের মত করে নিজেকে সিগারেটের মতো জ্বালাতে থাকে ।সে নিজে বুঝে না কিন্তু যাকে জ্বালায় সে বুঝেছে ধূমপান করার অনুভূতিটা কেমন।
কিন্তু সেই কষ্টগুলো নিজের কাছে চাপা রেখে ,সে বার বার সেই সিকারেট কে জ্বালাতে থাকে ।তার কারণ সে সিগারেট কে ভালবাসে তার জীবনের  নিঃসঙ্গতা কে
সঙ্গ দিতে  হয়তো সিগারেট কে ভালো বন্ধু তৈরি করেছে।
তাই বুঝি জীবনের ও কখনো কখনো অসহস্র  মানুষ ভুল বুঝে তার এক কোন এক সময়ের প্রিয় মানুষটির উপর।
কিন্তু কোন এক এই ভুল বোঝা বুঝি যদি তোমার রাগ করতে ইচ্ছে করে তবে কিছু সময়ের জন্য রাগ করেও বুকে এসে জড়িয়ে ধরো না ?
তাহলে সেই লেগে থাকা মুহূর্ত মিশে যাবে এক পলকে। শুধু ভালোবাসা, মায়া ,আবেগ ,দয়া, অনুভূতি তুমি ভুল ভেবে একের পর এক এই সমস্ত গুলোকে অপব্যবহার করো তাহলে এক সময় এই অদৃশ্য এক মিশে থাকা ভালোবাসা তোমাকে কষ্ট দিবে তখন তুমি হয়তো বুঝবে না,পূর্বে তুমিও এইগুলোকে অপব্যবহার করে কাউকে কষ্ট দিয়ে ছিলে।
রাগ অভিমান যদি না থাকে তবে ভালোবাসার মর্ম বোঝা যায় না তবে এ কেমন রাগ অভিমান যা শুধু আমাকে ভুল বুঝে গেলে। আমি পৃথিবী আমার গর্ভে চাহিদা মেটানোর এমন সকল কিছু চাহিদা থাকলেও তুমি কেন অভিমানী হবে।
 কেন তোমার ইচ্ছা করে না কখনো ?
ভালোবেসে এই পৃথিবীটাকে আপন করে নিতে, যেখানে তুমি সকল প্রিয় মানুষের মধ্যে একাকার হয়ে থাকতে আপন ভালোবাসার মধ্য দিয়ে।

তাই বুঝি তোমাদের এই পাপের কারণে আমার গর্ভে একাংশ নিকোটিনের মতো পুড়ে কালো হয়ে গেছে তাহলে অভিমান কেন আমার হবে না?
 
      যদি তুমি না বুঝতে ভুল, তাহলে হয়তো আমি আজকের দিনে অভিমানী হয়ে চিৎকার করে উল্কাপিণ্ড গুলো আমার গর্ভে প্রকাশ করতে দিতাম না।কষ্ট হলেও ভালোবেসে তোমাকে জড়িয়ে ধরতাম যার কারণে উল্কাপিণ্ড তোমাকে স্পর্শ না করতে পারে কিন্তু আজ আমি অভিমানী। কোন অনুভূতি নেই আমার ,এখন আর ভালবাসতে ইচ্ছে করে না ।
তাই কখন যে উল্কাপিণ্ড গুলো আমার বাহু স্পর্শ করে আমার গর্ভে প্রকাশ করে ,সে অনুভূতি আজ আমি বুঝতে পারিনা। কারন আজ যে আমি অভিমানী। অভিমানী পৃথিবী শুধু দুঃখের এক নিরলস ভালোবাসার আঘাত যা হয়তো একটি ভুল বোঝার জন্য।